আন্তর্জাতিক মানের ব্যবসা করতে চাইলে আপনার জন্য রইলো বেশ কিছু আইডিয়া International Business Idea

ইন্টার ন্যাশনাল ব্যবসা শুরু করতে চান , আইডিয়া পাচ্ছেন না কি করবেন ?বর্তমান সময়ে দেশীয় ব্যবসায় টানা পড়ান দেখা দেওয়ার কারণে অনেক তরুণ বিদেশী ব্যবসার  দিকে ঝুঁকছে। 

আজ আপনাদের জন্য নিয়ে এলাম বিদেশী জনপ্রিয় কিছু বেবসার আইডিয়া। আসুন দেখে নেওয়া যাক আইডিয়া গুলি-



                         ইন্টার ন্যাশনাল ব্যবসার আইডিয়া 


১) ইম্পোর্ট এবং এক্সপোর্ট 

ইন্টার ন্যাশনাল ব্যবসার কথা বলবো তার মধ্যে এক্সপোর্ট এবং ইম্পোর্ট এর কথা বলবোনা তাই কখনো হয়। মূলত এই ব্যবসার বাংলা অর্থ আমদানি এবং রপ্তানি। আমাদের দেশের উৎপাদিত জিনিস বিদেশে রপ্তানি  এবং বিদেশের উৎপাদিত জিনিস এদেশে এসে আমদানি করলে অনেক বেশি উপার্জন করা সম্ভব। এই বেবসা করতে হলে অনেক ডকুমেন্টস এর প্রয়োজন হয়। তা আপনাকে ভিন্ন এজেন্সির সাথে যোগাযোগ করে বের করতে হবে। 

আপনি চাইলে বিভিন্ন কোম্পানির মাধ্যমে পণ্য এক্সপোর্ট এবং ইম্পোর্ট করতে পারেন। এই ব্যবসা  করতে এ যা প্রয়োজন -


* ১ লক্ষ থেকে ১০ লক্ষ টাকার ক্যাপিটাল। 

* এক্সপিয়রেন্স কর্মী। 

* একটি ছোট  অফিস বা ওয়েবসাইট। 

* জিনিস  বেচার স্কিল। 

এই ধরণের বৈদেশিক ব্যবসা করে মাসে কমপক্ষে ১ লক্ষ টাকা উপার্জন করা সম্ভব। তবে পাবলিকের ডিমান্ড অনুযায়ী মাল আনাবেছা করতে হবে। 


২) দেশের তৈরী জিনিসপত্রের অনলাইন গুদাম 

যতদিন যাচ্ছে প্রযুক্তি তত উন্নতি হচ্ছে মানুষ ও হচ্ছে সুবিধাভোগী। বর্তমান সময়ে জনগণ দোকানের থেকে অনলাইন এ বেশি কেনাকাটা করতে পছন্দ করে থাকেন। সেই কারণে এই দুর্বলতাটা কাজে লাগিয়ে অনেকে অনলাইন ওয়েবসাইট খুলে ব্যবসা শুরু করে দিয়েছে। তবে এই ব্যবসা শুরু করতে হলে আপনাকে কিছু বেপার মাথায় রাখতে হবে ,তা হলো -

* আপনাকে মালপত্র বিক্রি করার জন্য অনলাইন গুদাম খুলতে হবে। 

* ২০ থেকে ৫০ হাজার টাকার ক্যাপিটাল। 

* গ্রাহক দের সামনে মাল বিক্রির স্কিল জানতে হবে। 

* ইন্টারনেটের কানেকশন এর জন্য ব্রডব্যান্ড কানেকশন। 


৩) বিদেশী রেস্তোরা 

বৈদেশিক ব্যবসা করতে চাচ্ছেন ? তাহলে শুরু করুন হোটেল ব্যবসা এটি হতে পারে আপনার জন্য পারফেক্ট আইডিয়া। ভালো মাপের রাঁধুনি নিয়ে এসে বিদেশী আইটেম এর খাবার তৈরী করতে পড়েন। তবে , এখেতে বেশ কিছু বেপার আপনাকে মাথায় রাখতে হবে ,সেগুলি হলো -

* কম করে ৮ লক্ষ থেকে ১০ লক্ষ টাকার ক্যাপিটাল। 

* দেশীয় ও বৈদেশিক আইটেম এর খাবার। 

* রেস্তোরার মান বাড়াতে দক্ষ রাঁধুনি 

* রেস্তোরা খোলার জন্য ভালো জায়গা।

 

৪) আন্তর্জাতিক ডেলিভারি ব্যবসা 

বিভিন্ন ধরণের জিনিসপত্র এ দেশ থেকে বিদেশে আবার বিদেশ থেকে এদেশে ডেলিভারি করে ভালো মাপের  অর্থ উপার্জন করতে পারবেন। ক্রেতাদের চাহিদা অনুযায়ী জিনিসপত্র ডেলিভারি করতে হবে ,তাহলে সহজেই লেভার মুখ দেখতে পাবেন, তবে এই ব্যবসা করতে প্রয়োজনীয় কিছু সামগ্রী লাগবে,তা হলো-

*  আপনাকে লাইসেন্স বের করতে হবে। 

* ৫০ হাজার টাকার মূলধন। 

* বিশ্বাসযোজ্ঞ প্রতিষ্টান।
  
* ডেলিভারি কর্মী। 

বর্তমান সময়ে অনেক কোম্পানি আছে এই ব্যবসার সাথে যুক্ত। আপনি ওদের সাথেও মিলিত হয়ে ব্যবসা  করতে পারেন। 

৫) ট্যুরিসম এজেন্সি মেডিকেল 

আন্তর্জাতিক বেবসার মধ্যে এই ব্যবসা টি অন্যতম। আপনি চাইলেই এই বেবসা টি করে সফল হতে পারেন। এক্ষেত্রে আপনাকে দায়িত্ব সহকারে গ্রাহক দের  ভালো মাপের চিকিৎসার জায়গা খুঁজে দিতে হবে। এবং সাথে সাথে ভ্রমণের জন্য অপোইটমেন্ট জোগাড় করে দেওয়া। এই বেবসা শুরু করতে হলে যে সম্পষ্ট সামগ্রী প্রয়োজন তা হলো-

* ১৫ থেকে ৩০ হাজার টাকার ক্যাপিটাল। 

* ভালো মাপের হাসপাতাল গুলোর এতে যোগাযোগ। 

* দেশ ও বিদেশে ভ্রমণের জন্য জায়গা জানতে হবে। 

* বিভিন্ন রজার চিকিৎসা ও ওষুদের নাম জানতে হবে। 
 
 ট্যুরিসম এজেন্সি মেডিকেল এর কাজ করে হাসপাতাল গুলো থেকে ভালো পরিমানে একটা  ভাগ পাবেন। 

৬) ওয়েডিং প্ল্যানার 

বর্তমান যুগে মানুষ এখন বাড়ি থেকে দূরে অথবা প্রকৃতির কোলে গিয়ে বিয়ের আয়োজন করতে ভালোবাসেন। আপনার মধ্যে যদি ভালো ওয়েডিং প্ল্যান থেকে থাকে তাহলে এটিকে কাজে লাগাতে পারেন।এক্ষেত্রে আপনি  বিয়েবাড়ির যাবতীয় কিছু অর্ডার নিলে  ভালো অংকের টাকা নিতে উপার্জন করতে পারবেন। এ ব্যবসা শুরু করার ক্ষেত্রে প্রয়োজনীয় যা লাগবে -

* আপনার পাসপোর্ট করতে হবে। 

* ২০ থেকে ৬০ হাজার টাকার ক্যাপিটাল। 

* ক্যামেরা ম্যান এর সাথে যোগাযোগ। 

* ডেকোরেশন এজেন্সির সাথে যোগাযোগ। 

এক্ষেত্রে আপনি যদি ঠিক ভাবে ওয়েডিং প্ল্যান এর কাজ টি করতে পারেন মাসে ৭০ থেকে ৮০ হাজার টাকা উপার্জন করতে পারবেন সহজেই। 


৭) আন্তর্জাতিক ভাষা শেখানোর সেন্টার

 যুগের সাথে সাথে মানুষ নিজেকে আপডেট করতে চাইছে। আর নিজেকে আপডেট করার জন্য বিদেশী ভাষা শেখার অত্যন্ত প্রয়োজনীও বিষয়। আপনি এটিকে কাজে লাগিয়ে একটি আন্তর্জাতিক ভাষা সেখান সেন্টার খুলতে পারেন। বর্তমা সময়ে মানুষের বিভিন্ন ভাষা যেমন- ইংরেজি,ক্যানাডা ,চাইনিজ,জাপানি ,হিন্দি ইত্যাদি শেখার প্রতি আগ্রহ রয়েছে। তাই এই সুযোগ কে কাজে লাগিয়ে একটি আন্তর্জাতিক ভাষা শেখানোর সেন্টার খুললে ভালো উপার্জন করা সম্ভব।  এই বেবিডসটি শুরু করতে প্রয়োজনীয় জিনিসগুলি হলো -

* ৩০ থেকে ৫০ হাজার টাকার ক্যাপিটাল। 

* ভিন্ন ভাষা জানা অভিজ্ঞ শিক্ষক। 

* অনলাইন এবং অফলিনে মার্কেটিং। 

* চাইহীদা অনুযায়ী ভাষা সিলেকশন। 

আন্তর্জাতিক ভাষা শেখানোর সেন্টার খুলে খুব সহজেই আপনি মাসে ৩০ থেকে ৫০ হাজার টাকা উপার্জন করতে পারবেন।    ধন্যবাদ। 



TAGG- business idea 

Post a Comment (0)
Previous Post Next Post